রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশী পাসপোর্ট সরবরাহকারী চক্রের ৬ সদস্য গ্রেফতার

শেয়ার করুন

সিপ্লাস ডেস্ক: তিন থেকে পাঁচ লাখ টাকায় জাতীয় পরিচয়পত্র, পাসপোর্ট, বিদেশযাত্রা সবই মিলে রোহিঙ্গাদের। রোহিঙ্গাদের জন্য সেই পাসপোর্টের কাজে ঢাকায় যাওয়ার পথে চক্রটির ছয় সদস্যকে গ্রেফতার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ।

এ সময় তাদের কাছ থেকে ৫টি পাসপোর্ট ও একটি জাতীয়পত্র উদ্ধার করে তারা।

গ্রেফতাররা হলেন- মো. খসরু পারভেজ (৩৬) মো. তসলিম (৪০), মো. ইসমাইল (২০) এবং মো. ফারুক (২৭)।

রোহিঙ্গা দুইজন হলেন, মো. জাবের (২৫) ও রজি আলম (২৭)।

বৃহস্পতিবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলন করে এসব তথ্য জানান মহানগর গোয়েন্দা (উত্তর) বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার নিহাদ আদনান তাইয়ান।

তিনি বলেন, গত ১০ ফেব্রুয়ারি সৌদি আরবে পালিয়ে যাওয়ার সময় চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বাংলাদেশি পাসপোর্টসহ আসাদ উল্লাহ নামে এক রোহিঙ্গাকে গ্রেফতার করে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) সদস্যরা। গ্রেফতার রোহিঙ্গা আসাদ উল্লাহ গত ৯ জানুয়ারি উখিয়া থানায় দায়ের করা একটি হত্যা মামলার আসামি। বাংলাদেশি পাসপোর্ট নিয়ে আসাদ উল্লাহ জেদ্দাগামী একটি ফ্লাইটে সৌদি আরবে যাওয়ার চেষ্টা করছিল। পুলিশ খবর পেয়ে সন্ধ্যা ৬টা ৪৫ মিনিটে তাকে গ্রেফতার করে।

তিনি আরও বলেন, এ সময় তার কাছে পাওয়া বাংলাদেশি পাসপোর্টটিও জব্দ করা হয়। পরে তার কাছে দেশি পাসপোর্ট কিভাবে এসেছে সেটার তদন্তে নামলে এ চক্রের সন্ধান মেলে। পরে আজ বৃহস্পতিবার ভোরে ঢাকায় চলে যাওয়ার সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে অবৈধভাবে পাসপোর্ট তৈরির মূলহোতা পারভেজসহ আরও দুই রোহিঙ্গাকে গ্রেফতার করা হয়। এরপর পারভেজের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে তার অপর সহযোগী তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে পাঁচটি পাসপোর্ট ও একটি জাতীয় পরিচয়পত্র পাওয়া গেছে।

জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানিয়েছে, অন্য সদস্যদের সহায়তায় রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশি পাসপোর্ট/জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরি করে মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে পাঠাতে সহযোগিতা করে আসছে তারা। প্রতিটি পাসপোর্ট তৈরিতে ১ লাখ টাকা এবং মধ্যপ্রাচ্যে পাঠানোর জন্য ৩ থেকে ৪ লাখ টাকা পর্যন্ত নিয়ে থাকে।

নিহাদ আদনান তাইয়ান বলেন, তাদের এ চক্রের মধ্যে আর ৪-৫ জন সদস্য রয়েছে। তাদের বাকি সদস্যরা ঢাকার পাসপোর্ট অফিসের সামনে থাকে। তাদের মাধ্যমেই পাসপোর্ট তৈরি করে। এছাড়া এ চক্র চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারের বিভিন্ন এলাকা থেকে তাদের নিজস্ব লোক দিয়ে রোহিঙ্গা নাগরিকের ব্যবস্থা করতো। এরপর শুধু ওই রোহিঙ্গা নাগরিকদের নাম ঠিক রেখে বাবা-মা, স্থানের নাম বিভিন্ন জায়গার দিয়ে পাসপোর্ট তৈরি করতো।

তিনি আরও বলেন, ‘প্রত্যেক রোহিঙ্গা পাসপোর্ট বানিয়ে সৌদি আরবে চলে যায়। তারা বাংলাদেশে আসার আগে থেকে তাদের পরিচিত অনেকে সৌদি আরবে আছে। তারাই এই রোহিঙ্গাদের সেখানে নিয়ে যেতে সহযোগিতা করে। আর এ চক্রটি রোহিঙ্গাদের পাসপোর্ট ও সেখানে যেতে যাবতীয় সব ধরনের সহযোগিতা করে।

Scroll to Top