বাইডেনকে প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে প্রত্যাশা করেন ডোনাল্ড ট্রাম্প

শেয়ার করুন

চাটগাঁ নিউজ ডেস্ক : চলতি বছরের নভেম্বরে অনুষ্ঠেয় যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়াইয়ে প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে জো বাইডেনকে প্রত্যাশা করছেন সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ট্রাম্প বলেছেন, তিনি আশা করেন না জো বাইডেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পুনরায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার সুযোগটি হাতছাড়া করেন। আত্মসম্মানের জন্য হলেও তার লড়াইয়ে টিকে থাকা উচিত বলে মনে করেন ট্রাম্প।

সোমবার (৮ জুলাই) রাতে ফক্স নিউজে একটি টেলিফোন সাক্ষাতকার দেন ট্রাম্প। সেখানে এই রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট প্রার্থী বলেন, ‘বাইডেন তার শারীরিক ও মানসিক অক্ষমতার জন্য বাদ পড়ার চাপে আছেন। তবে তিনি খুব ভালোভাবেই এই চাপ সামলে উঠতে পারবেন।’ তিনি বলেন, ‘আমার মনে হয়, তার অহংকার আছে এবং তিনি লড়াই ছাড়তে চান না।’

রিপাবলিকান মনোনীত ট্রাম্প বলেছেন, নির্বাচনের দৌঁড় থেকে বাইডেনকে সরানোর জন্য ডেমোক্রেটিক পার্টির হাতে তেমন কিছু করার সুযোগ নেই। তবে সাংবিধানিক একটি উপায়ের কথা বাতলে দেন ট্রাম্প। তিনি বলেন, এক্ষেত্রে ভাইস প্রেসিডেন্ট ও তার মন্ত্রিসভার সদস্যরা ঘোষণা করতে পারেন যে প্রেসিডেন্ট তার দায়িত্ব পালনে অক্ষম। ট্রাম্প বলেন, ‘তার কাছে সব ক্ষমতা আছে, মন্ত্রিসভায় যথেষ্ট প্রতিনিধি আছে। তাকে লড়াই থেকে সরে দাঁড়াতে হবে না।’

ট্রাম্প বলছেন বাইডেন যদি নিজ থেকে সরে যেতে চান তবে তিনি ডেমোক্রেটিক দলের মনোনীত প্রার্থী হিসেবে কমলা হ্যারিসকে প্রত্যাশা করেন। তিনি বলেন ‘আমি মনে করি এটা তার (কমলা হ্যারিস) হবে। এটা তার না হলে তাদের ( ডেমোক্রেটিক পার্টি) ভোট নিয়ে উদ্বিগ্ন হতে হবে। ডেমোক্র্যাটরা খুব তোপের মুখে পড়বেন, যদি তারা অন্য কাউকে বাছাই করতে যান।’

এর আগে (৮ জুলাই) সোমবার নিজ দল ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রতিনিধি পরিষদ ও সিনেট সদস্যদের কাছে লেখা এক চিঠিতে বাইডেন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়াইয়ে থাকার কথা দৃঢ়ভাবে পুনর্ব্যক্ত করেছেন। বাইডেন চিঠিতে লেখেন, ‘গণমাধ্যম ও বিভিন্ন মহলের জল্পনা সত্ত্বেও আমি আপনাদের জানাতে চাই, নির্বাচন করতে, নির্বাচনের দৌড় শেষ করতে এবং ডোনাল্ড ট্রাম্পকে পরাজিত করতে আমি দৃঢ় প্রতিজ্ঞ।’

গত মাসে মার্কিন নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রথম বিতর্কে অংশ নেন বর্তমান প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ও ডেনাল্ট ট্রাম্প। সেই বিতর্কে ট্রাম্পের কাছে ধরাশায়ী হন বাইডেন। এর পর থেকেই খোদ ডেমোক্রেট দলের পক্ষ থেকেই পরবর্তী নির্বাচনে বাইডেনের সরে দাঁড়ানোর চাপ আসে। এই পর্যন্ত ছয়জন নির্বাচিত ডেমোক্র্যাট নেতা প্রকাশ্যে বাইডেনকে সরে যাওয়ার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন।

অন্যান্য ডেমোক্রেটিক আইন প্রণেতারা বাইডেনের বর্তমান বয়স ও মানসিক অবস্থায় ট্রাম্পকে হারানোর সক্ষমতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। যদিও বাইডেন এখনও পর্যন্ত বেশিরভাগ ডেমোক্রেটিক শীর্ষস্থানীয় ব্যক্তিদের পাশে রাখতে সক্ষম হয়েছেন।

চাটগাঁ নিউজ/এআইকে

Scroll to Top