প্রার্থীর সমর্থকের বাড়িতে হামলা, যুবলীগ নেতা আটক

শেয়ার করুন

চাটগাঁ নিউজ ডেস্কঃ বাঁশখালীর বাহারছড়া ইউনিয়ন উপ-নির্বাচনে পরাজিত প্রার্থীর সমর্থকদের বাড়িঘরে হামলার ঘটনায় মো. সেলিম উদ্দিন চৌধুরী নামে এক যুবলীগ নেতাকে আটক করেছে পুলিশ।

রবিবার (১০ মার্চ) দিবাগত রাতে উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের রত্নপুর গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে আটক করা হয় তাকে। আটক সেলিম উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক এবং বাঁশখালীর আলোচিত সাবেক এমপি মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরীর অনুসারী হিসেবে পরিচিত।

হামলার শিকার হওয়া শিক্ষক জালাল উদ্দিন বলেন, নির্বাচনের পরের দিন সেলিম উদ্দিন, মোরশেদুল আলমসহ ২০ থেকে ৫০ জন দা কিরিচ ও লাঠিসোটা নিয়ে গালাগালি করতে করতে আমার বাড়ির গেইট ভেঙে ঢুকে যায়। এসময় বাড়ির বাইরে আমার বড় ছেলে হাসনাইন খেলা করছিল। তখন তাকেও লাথি মারে ওরা। আমার স্ত্রী তাদের ঘরে ঢুকতে বাঁধা দিলে তাকে লাথি ও কিলঘুষি মারে। পরে বাড়িতে ঢুকে ঘরের জিনিসপত্র নষ্ট করে এবং আলমারিতে রক্ষিত স্বর্ণ ও দামি মালামাল নিয়ে বেরিয়ে যায়। এ ঘটনার বিচার চেয়ে আমি থানাকে অবহিত করেছি।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বাঁশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তোফায়েল বলেন, বাহারছড়ায় নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। আনারস প্রতীকের পরাজিত প্রার্থী খোকনের সমর্থকের বাড়িতে হামলা হয়েছে। এই হামলার অভিযোগে সেলিমকে আটক করা হয়েছে।

এর আগে শনিবার (৯ মার্চ) বাহারছড়া ইউনিয়নের উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে জাতীয় পার্টির মো. রেজাউল করিম প্রকাশ ইউনুছ মুনসি সিএনজি প্রতীকে নির্বাচিত হন। নির্বাচনে পরাজিত প্রার্থী আরেক যুবলীগ নেতা জসিম উদ্দিন চৌধুরী খোকনের সমর্থক জালাল উদ্দিন চৌধুরীর বাড়িতে হামলা চালান বিজয়ী প্রার্থী রেজাউলের সমর্থক সেলিম। নির্বাচনের পরদিন রবিবার সকালে সেলিম ধারালো কিরিচ নিয়ে পরাজিত প্রার্থী শিক্ষক জালালের বাড়িতে গিয়ে তার স্ত্রী ও সন্তানকে মারধর করেন এবং বাড়িঘরে হামলা চালান। পরে ভুক্তভোগীর করা অভিযোগে সেলিমকে আটক করা হয়।

চাটগাঁ নিউজ/এসবিএন

Scroll to Top