নগরী ও জেলাতে এবার সাড়ে ৩ লাখ পশুর চামড়া সংগ্রহ করার টার্গেট

শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক :  চট্টগ্রাম মহানগরী ও জেলা জুড়ে এবারের কোরবানির ঈদে সাড়ে তিন লাখ গবাদী পশুর কাঁচা চামড়া সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে চট্টগ্রামের আড়ৎদাররা। চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের অনুরোধে স্থানীয়ভাবে এক থেকে দুই সাপ্তাহ সংরক্ষণ করারও প্রস্তুতি নিয়েছেন তারা।

আগামীকাল সোমবার (১৭ জুন) বাংলাদেশে পবিত্র কোরবানির ঈদ হবে। রেওয়াজ অনুযায়ী পরের দুই দিনও কিছু পশু কোরবানি চলবে। ওই সময় পাড়া-মহল্লা থেকে কাঁচা চামড়া কিনে বা সংগ্রহ করে মৌসুমী ক্রেতারা তা বিক্রি করবেন আড়তে। আড়ত সেই চামড়া কিছুটা প্রক্রিয়াজাত করে ট্যানারিগুলোর কাছে বিক্রি করবে।

কাঁচা চামড়া সংরক্ষণের জন্য লবণ কেনা, চামড়াজাত করার জন্য গুদাম ভাড়া এবং শ্রমিক ঠিক করে সকল ধরনের প্রস্তুতি ইতোমধ্যে সম্পন্ন করেছেন কাঁচা চামড়া আড়ৎদার সমিতি।

প্রতিবার বর্গফুট হিসেবে চামড়ার দাম নির্ধারণ করা হলেও এবার পিস হিসেবে আলাদা দাম প্রকাশ করায় মৌসুমী-ফড়িয়া ও আড়ৎদারদের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝির আশংকা করছেন ট্যানারী মালিকরা।

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান রাতারাতি চামড়া ঢাকায় না নেওয়ারও অনুরোধ করেছেন আড়ৎদারদের।

ঈদ সামনে রেখে কোরবানির পশুর চামড়া সংগ্রহের দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে সরকার। ঢাকায় গরুর চামড়ার দাম গতবারের চেয়ে ৫ টাকা এবং ঢাকার

বাইরে ৩ টাকা বেড়েছে। ট্যানারি ব্যবসায়ীদের এবার ঢাকায় লবণযুক্ত প্রতি বর্গফুট গরুর চামড়া কিনতে হবে ৫৫ থেকে ৬০ টাকায়; গত বছর এই দাম ছিল ৫০ থেকে ৫৫ টাকা।

ঢাকার বাইরে (চট্টগ্রামে) লবণযুক্ত প্রতি বর্গফুট গরুর চামড়ার দাম হবে ৫০ থেকে ৫৫ টাকা, গতবছর যা ৪৭ থেকে ৫২ টাকা ছিল।

জানা গেছে, চট্টগ্রামের আতুড়ার ডিপোর আড়ৎপাড়া থেকে প্রতি বছর ৩ থেকে সাড়ে তিন লাখ লবনজাত চামড়া যায় ঢাকার ট্যানারীগুলোতে। এবছরও একই পরিমান চামড়া সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে আড়ৎদাররা। কিন্তু প্রতিবছরের মতো এবারো ঢাকার ট্যানারী মালিকদের কাছ থেকে বকেয়া টাকা বুঝে পাননি আড়ৎদাররা। গেলবারের চেয়ে সরকার নির্ধারিত বাড়তি দামে চামড়া কেনা নিয়ে শংশয় প্রকাশ করছে আড়ৎদার সমিতি।

কয়েক বছর আগেও ছোট বড় মিলিয়ে অন্তত দেড়শো আড়তদার চামড়া সংগ্রহ করতো চট্টগ্রামের আতুড়ার ডিপো আড়তপাড়া থেকে। কিন্তু এখন এই সংখ্যা নেমে এসেছে মাত্র ৩০ থেকে ৩৫ জনে।

বকেয়া টাকা বুঝে না পাওয়ার পাশাপাশি লবন, লেবার ও পরিবহন খরচ যোগাড় করতে না পেরে ব্যবসা ছেড়েছেন অনেকে।

ট্যনারী মালিকরা বলছেন, বর্গফুট হিসেবে চামড়ার দাম এক পিচ হিসেবে আরেক। লবনযুক্ত, লবন ছাড়া, ঢাকার ভেতরে ও ঢাকার বাইরে আলাদা আলাদা দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে সরকার। এত সব জটিল কঠিন হিসেবে নিকেশ না বোঝায় মৌসুমী ব্যবসায়, ফড়িয়া কিংবা আড়ৎদারদের মধ্যে সমন্বয় না হওয়ার শংকা আছে এবার। করোনার পর চাহিদা বাড়লেও রাশিয়া, ইউক্রেন ও ফিলিস্তিনে যুদ্ধের কারণে আন্তর্জাতিক বাজারে চামড়ার অর্ডার কমেছে ১৫ শতাংশের বেশি। ফলে সবগুলো ট্যানারী আগের মতো চামড়া কিনবে কিনা তা নিয়েও সংশয় জানান মালিকরা।

বৃহত্তর চট্টগ্রাম কাঁচা চামড়া আড়তদার ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির সভাপতি মোহাম্মদ মুসলিম চাঁটগা নিউজকে বলেন, গতবছর চট্টগ্রামে কোরবানির ঈদে প্রায় ৩ লাখ ৪৫ হাজার কোরবানির পশুর চামড়া সংগ্রহ করেছিলাম আমরা। এর মধ্যে আড়াই লাখের বেশি ছিল গরুর চামড়া। এবার গরু,ছাগল,মহিষ মিলে সাড়ে ৩ লাখ চামড়া সংগ্রহের টার্গেট আছে আমাদের। এখন আমাদের লবণ ক্রয়, লোকবল ঠিক করা-গুদাম ঠিক করাসহ সার্বিক প্রস্তুতি চলছে।

তিনি বলেন, এবছর গরমের তীব্রতা আগের বছরগুলোর চেয়ে বেশি, যেটা চামড়া সংগ্রহের জন্য অনূকূলে নয়। চামড়া রেখে দিলে খুব তাড়াতাড়ি সেগুলো নষ্ট হয়ে যাবে। তাই মৌসুমী ব্যবসায়ীদের কাছে অনুরোধ থাকবে চামড়া সংগ্রহ করার পর যাতে দ্রুত আড়তে নিয়ে আসে অথবা লবণ দিয়ে স্থানীয় ভাবে মজুদ করে রাখা হয়।

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক (ডিসি) আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান চাঁটগা নিউজকে বলেছেন,পবিত্র ঈদুল আজহার কোরবানির চামড়া স্থানীয়ভাবে ৭ থেকে ১০ দিন সংরক্ষণ করতে হবে। চামড়া যেন বর্ডার ক্রস না করে সে বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে দেখতে হবে। সংরক্ষণ করতে গিয়ে চামড়া যেন নষ্ট না হয় সেদিকেও সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে। চামড়া আমাদের জাতীয় সম্পদ। এ সম্পদকে যথাযথভাবে সংরক্ষণ করে কাজে লাগাতে হবে।

চাটগাঁ নিউজ/এসআইএস

Scroll to Top