এবার মাউন্ট এভারেস্ট জয় করতে চান চট্টগ্রামের বাবর

শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ পৃথিবীর সর্বোচ্চ শৃঙ্গ মাউন্ট এভারেস্ট জয় করা যে কোনও পর্বতারোহীর কাছেই স্বপ্ন এবং প্রতি বছরই এভারেস্ট অভিমুখী পর্বতারোহীর সংখ্যাও দিন দিন বাড়ছে। সেই দৌড়ে আছেন বাংলাদেশীরাও। বাংলাদেশে গত কয়েক বছরে অন্তত পাঁচজন বিশ্বের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ মাউন্ট এভারেস্টের চূড়ায় উঠেছেন। তবে এবার সেই সুউচ্চ পর্বত আরোহনের খেতাব অর্জন করতে যাচ্ছেন চট্টগ্রামের সন্তান ডা. বাবর আলী।

সোমবার (১ এপ্রিল) নেপালের উদ্দেশ্যে বাংলাদেশ ছেড়েছেন বাবর আলী। পর্বতারোহণের প্রয়োজনীয় অনুমতি ও সরঞ্জাম নেওয়ার পরে নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডু থেকে উড়ে যাবেন লুকলা। এরপর এক সপ্তাহের ট্রাকিং শেষে বাবর পৌঁছাবেন এভারেস্টের বেজক্যাম্পে। সেখান থেকেই শুরু হবে বাবরের মূল অভিযান।

চাটগাঁ নিউজের এক সাক্ষাৎকারে এভারেস্ট জয়ের বিষয়ে ডা. বাবর আলী বলেন, যেকোনো পর্বতারোহীর স্বপ্ন হল এভারেস্ট জয় করা। চট্টগ্রামের মানুষ হিসেবে আমরা আশীর্বাদপুষ্ট, কারন আমাদের কাছেই পাহাড়, সমুদ্র সব কিছু আছে। চট্টগ্রামের সন্তান হিসেবে আমি প্রথম এভারেস্ট জয়ের অভিযানে যাচ্ছি। সেই সাথে বাংলাদেশ থেকে প্রথমবারের মতো আমি মাউন্ট লোটসে জয়ের অভিযানও করব। আর এই চ্যালঞ্জ ও ঝুঁকি নেওয়ার জন্য আমার নিজের প্রতি আস্থা আছে।

জানা যায়, পাহাড়-পর্বতের প্রতি বাবরের রয়েছে আলাদা একটি টান। ২০১০ সাল থেকে পার্বত্য চট্টগ্রামের বিভিন্ন পাহাড়ে পদচারণার মধ্য দিয়ে শুরু হয় বাবরের ট্রেকিং জগত। ২০১৪ সালে শুরু হয় বাবরের পর্বতারোহণের পথচলা। ২০২২ সালে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে ২২ হাজার ৩৪৯ ফুট উচ্চতার হিমালয়ের অন্যতম দুর্গম ও টেকনিক্যাল চূড়া ‘আমা দাবলাম’ জয় করেন চট্টগ্রামের এই পর্বতারোহী।

এর আগেও বাংলাদেশ থেকে একাধিক ব্যক্তি বিশ্ব চূড়ায় দেশের পতাকা উড়িয়েছেন। তবে চট্টগ্রাম থেকে কেউ এই সাহস এখন অব্দি করেনি। ডা. বাবর আলী যদি শেষ পর্যন্ত এভারেস্ট চূড়ায় পৌঁছে যান তাহলে তিনিই হবেন চট্টগ্রাম থেকে প্রথম এভারেস্ট জয়ী। এই ছাড়া প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে একইসঙ্গে বিশ্বের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ মাউন্ট এভারেস্ট ও চতুর্থ সর্বোচ্চ শৃঙ্গ মাউন্ট লোৎসে জয় করবেন তিনি। বাংলাদেশের পাঁচ পর্বতারোহী এর আগে মাউন্ট এভারেস্ট জয় করলেও মাউন্ট লোৎসে বাংলাদেশিদের কাছে এখনও অজেয়।

পর্বতারোহী বাবর আলীর এই পুরো অভিযানে সময় লাগবে প্রায় দুই মাস। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে মে মাসের তৃতীয় সপ্তাহ কিংবা শেষ সপ্তাহের দিকে চূড়ায় আরোহণ করতে পারেন এই অভিযাত্রী। এই দুই অভিযানে গমনের পুর্বে বাবর আলী পুরো দেশবাসীর কাছে দোয়া কামনা করেন।

চাটগাঁ নিউজ/এসবিএন

Scroll to Top