ইরানে কারাবন্দি দুই নারী সাংবাদিকের মুক্তি

শেয়ার করুন

চাটগাঁ নিউজ ডেস্ক: ইরানে আলোচিত মাশা আমিনির (২২) মৃত্যু এবং তাকে ঘিরে গড়ে ওঠা আন্দোলনের খবর প্রকাশ করার কারণে এক বছর ধরে কারাবন্দি থাকা নিলুফার হামেদি (৩১) এবং এলাহেহ মোহাম্মদিকে (৩৬) জামিনে মুক্তি দিয়েছে ইরান। দুই লাখ মার্কিন ডলার জামানতে এ দুই নারী সাংবাদিকের জামিন হয়েছে এবং এ সময়ে তারা দেশ ত্যাগ করতে পারবেন না।

২০২২ সালে তাদের বিরুদ্ধে মার্কিন সরকারের সঙ্গে যোগসাজশের অভিযোগ এনে গ্রেফতার করা হয়। ইরানের গণমাধ্যম জানিয়েছে, এ দুই ইরানি সাংবাদিককে তাদের বিরুদ্ধে মামলার আপিল চলা অবস্থাতেই জামিনে মুক্তি দেওয়া হয়েছে।

নিলুফার হামেদি কাজ করতেন দৈনিক শার্গ পত্রিকায় এবং এলাহেহ মোহাম্মদি হাম-মিহান পত্রিকার জন্য সামাজিক সমস্যা এবং লিঙ্গ সমতা নিয়ে সংবাদ পরিবেশন করতেন। ২০২৩ সালে তারা যৌথভাবে ইউনেস্কোর বিশ্ব গণমাধ্যম স্বাধীনতা পুরস্কার পেয়েছিলেন।

প্রসঙ্গত, সঠিকভাবে হিজাব না পরার কারণে কারাগারে নেওয়ার পর পুলিশী হেফাজতে মারা যান আমিনি। তার এমন মৃত্যুর বিষয় নিয়ে প্রথম প্রতিবেদন প্রকাশ করা সাংবাদিকদের মধ্যে ছিলেন হামেদী এবং মোহাম্মদী।

কুর্দি তরুণী আমিনির মৃত্যুর পর ইরানজুড়ে ব্যাপক প্রতিবাদ শুরু হয়। অনেক নারী ইরান সরকারের নীতির বিরোধিতা করে হিজাব খুলে প্রতিবাদ জানান। বিক্ষোভ দমনে অনেককে গ্রেপ্তার করে সরকার।

গত বছর অন্যান্য নানা অভিযোগের মধ্যে এ দুই সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মার্কিন সরকারের সঙ্গে সহযোগিতার অভিযোগও আনে ইরানের একটি আদালত। ইরানের বিচার বিভাগীয় সংবাদ সংস্থা মিজান জানিয়েছে, তাদের ১৩ ও ১২ বছর কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। এ রায়ের বিরুদ্ধে তাদের আপিল এখন বিবেবচনাধীন রয়েছে।

দুই সাংবাদিকের জামিনের বন্ড হিসাবে নির্ধারণ করা হয়েছে মাথাপিছু প্রায় দুই লাখ ইউরো (প্রায় দুই কোটি টাকা)। বিচার প্রক্রিয়া শেষ হওয়ার আগে তাদের দেশত্যাগের ওপরও নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, আমিনির মৃত্যুর পরে সারা দেশে ছড়িয়ে পড়া বিক্ষোভের মধ্যে এ দুজনের মতো শতাধিক সাংবাদিককে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। দেশে এবং বিদেশে তথ্যপ্রকাশে নিয়ন্ত্রণ আরোপের চেষ্টা করেছিল ইরান।

খবর: ডয়েচে ভেলের/বিবিসি

 

চাটগাঁ নিউজ/এমএসআই

Scroll to Top