আরও শক্তি হারিয়েছে ডলার

শেয়ার করুন

চাটগাঁ নিউজ ডেস্ক: বিশ্ব অর্থনীতিতে যুক্তরাষ্ট্রের ডলারকে সাধারণত সবচেয়ে শক্তিশালী মুদ্রা হিসেবে বিবেচনা করা হয়। তার কারণ হচ্ছে বিশ্বের যত মুদ্রা আছে তারমধ্যে মার্কিন ডলারই সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়ে থাকে। তবে বেশ কিছু মুদ্রা রয়েছে যেগুলো ইউএস ডলারের চেয়েও বেশি শক্তিশালী। কারণ ইউএস ডলারের বিপরীতে সেই মুদ্রাগুলোর দাম বেশি।

ইউএস ডলার আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হলেও, ১৮০টি ফিয়াট মুদ্রার মধ্যে ইউএস ডলার সবচেয়ে বেশি শক্তিশালী নয়। ফিয়াট হলো এমন মুদ্রা, যার মূল্য সোনা বা রুপার মতো ভৌতিক পণ্যের সঙ্গে সম্পৃক্ত নয়।

মার্কিন সাময়িকী ফোর্বস গত বছরের ৩০ নভেম্বর— ২০২৪ সালের বিশ্বের সেরা ১০টি মুদ্রার একটি তালিকা প্রকাশ করে। যেখানে তলানিতে রয়েছে ডলারের মান।

ইউএস ডলারসহ বেশি শক্তিশালী এমন ১০টি মুদ্রার তালিকা তুলে ধরা হলো:

১. কুয়েতি দিনার (কেডব্লিউডি): কুয়েতি দিনার হলো বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী মুদ্রা। বর্তমান বাজারে ১ কুয়েতি দিনারের বিপরীতে ৩.২৬ ইউএস ডলার পাওয়া যায়। অপরদিকে বাংলাদেশি ৩৫৭ টাকায় পাওয়া যায় এক কুয়েতি দিনার। কুয়েতি দিনার ব্রিটিশ পাউন্ডের মতো একটি মুদ্রার পরিবর্তে আরও বেশ কয়েকটি মুদ্রার সঙ্গে একটি নির্দিষ্ট হারে বিনিময় করা হয়।

২. বাহরাইন দিনার (বিএইচডি): বাহরাইন দিনার হলো বিশ্বের দ্বিতীয় শক্তিশালী মুদ্রা। বর্তমান বাজারে ১ বাহরাইন দিনারের বিপরীতে ২.৬৫ ইউএস ডলার পাওয়া যায়। আর বাংলাদেশি ২৯২ টাকায় কেনা যায় এক বাহরাইনি দিনার। ১৯৬৫ সালে বাহরাইন দিনার প্রচলিত হয় এবং তা ডলারের সঙ্গে পেগ করা হয়।

৩. ওমানি রিয়াল (ওএমআর): ওমানি রিয়াল এখন বিশ্বের তৃতীয় শক্তিশালী মুদ্রা। বর্তমান বাজারে ১ ওমানি রিয়ালের বিপরীতে ২.৬০ ইউএস ডলার পাওয়া যায়। বাংলাদেশি ২৮৬ টাকায় মিলবে এক ওমানি রিয়াল। সত্তরের দশকে ওমানি রিয়াল চালু হয়েছিল এবং তা ডলারের সঙ্গে পেগ করা হয়।

৪. জর্ডানিয়ান দিনার (জেওডি): জর্ডানিয়ান দিনার হলো বিশ্বের চতুর্থ শক্তিশালী মুদ্রা। বর্তমান বাজারে ১ জর্ডানিয়ান দিনারের বিপরীতে ২.৪১ ইউএস ডলার পাওয়া যায়। আর বাংলাদেশের ১৫৫ টাকায় পাওয়া যায় এক জর্ডানিয়ান দিনার। ১৯৫০ সালে জর্ডানিয়ান দিনারের প্রচলন শুরু হয় এবং ডলারের সঙ্গে পেগ করা হয়।

৫. ব্রিটিশ পাউন্ড (জিবিপি): ব্রিটিশ পাউন্ড বিশ্বের পঞ্চম শক্তিশালী মুদ্রা। বর্তমান বাজারে ১ ব্রিটিশ পাউন্ডের বিপরীতে ১.২২ ইউএস ডলার পাওয়া যায়। এক ব্রিটিশ পাউন্ড মিলবে ১৪০ টাকায়। চতুর্দশ শতকে এ মুদ্রা চালু হয় এবং ১৯৭১ সালে মুদ্রাটি ডেসিমেলাইজড হয়। এ মুদ্রা অন্য কোনো মুদ্রার সঙ্গে বাঁধা নেই।

৬. কেম্যান দ্বীপপুঞ্জ ডলার (কেওয়াইডি): কেম্যান দ্বীপপুঞ্জের ডলার বিশ্বের শক্তিশালী মুদ্রাগুলোর মধ্যে ষষ্ঠ স্থানে রয়েছে। বর্তমান বাজারে প্রতিটি কেম্যান ডলারের বিপরীতে ১.২০ ইউএস ডলার পাওয়া যায়। এক ক্যামেন আইল্যান্ড ডলারে মিলবে ১৩২ টাকা। সত্তরের দশকে কেম্যান ডলার চালু হয়েছিল এবং তা ডলারের সঙ্গে বাঁধা আছে।

৭. জিব্রাল্টার পাউন্ড: বিশ্বের শক্তিশালী মুদ্রাগুলোর মধ্যে কেম্যান ডলারের সঙ্গে সপ্তম স্থানে রয়েছে। বর্তমান বাজারে প্রতিটি জিব্রাল্টার পাউন্ডের বিপরীতে ১.২২ ইউএস ডলার পাওয়া যায়। এক জিব্রাল্টার পাউন্ড পাওয়া যাবে ১৪০ টাকায়। ১৯২০-এর দশকে জিব্রাল্টার পাউন্ড চালু হয়েছিল এবং এটি ব্রিটিশ পাউন্ডের সঙ্গে পেগ করা হয়।

৮. সুইস ফ্রাংক: বিশ্বের শক্তিশালী মুদ্রাগুলোর মধ্যে অষ্টম স্থানে রয়েছে সুইস ফ্রাংক। বর্তমান বাজারে প্রতিটি ফ্রাংকের বিপরীতে ১.০৮ ইউএস ডলার পাওয়া যায়। এক সুইস ফ্রাঁর সমান ১২৭ টাকা। ১৮৫০ সালে সুইস ফ্রাংক চালু করা হয়েছিল এবং পরে ফ্রি-ফ্লোটে যাওয়ার আগে এ মুদ্রা ইউরোর সঙ্গে বাঁধা আছে। সুইজারল্যান্ডের রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার কারণে মুদ্রাটিকে একটি নিরাপদ আশ্রয় হিসাবেও দেখা হয়।

৯. ইউরো: এখন প্রতিটি ইউরোর বিপরীতে ১.০৮ ইউএস ডলার পাওয়া যায়। এক ইউরো দিয়ে পাওয়া যায় ১২০ টাকা। এটি অন্য কোনো মুদ্রার সঙ্গে বাঁধা নেই। ২০০২ সালের ইউরোর কয়েন ও ব্যাংক নোট চালু হয়। ইউরো হলো ইউরোপীয় ইউনিয়ন গঠনকারী ২৭টি দেশের মধ্যে ২০টির সরকারি মুদ্রা।

১০. মার্কিন ডলার: মার্কিন ডলার হলো বিশ্বের ১০তম শক্তিশালী মুদ্রা। বিশ্বে অন্য সব মুদ্রার দাম ইউএস ডলারের চেয়ে কম। বাংলাদেশি ১১০ টাকায় পাওয়া যায় এক ডলার। বর্তমানে মুদ্রাটি বিশ্বের বৃহত্তম রিজার্ভ কারেন্সি। অর্থাৎ কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলোর কাছে সবচেয়ে বেশি মজুত করা মুদ্রা হলো ইউএস ডলার। তেল, স্বর্ণ, রুপা ও তামাসহ অনেক পণ্যের মূল্য নির্ধারণের জন্য এ মুদ্রা ব্যবহার হয়। সতেরো শতকে এ মুদ্রা চালু হয়।

প্রসঙ্গত, বিশ্বের বেশিরভাগ মুদ্রার মানই চাহিদা এবং সরবরাহ অনুযায়ী ওঠানামা করে। তবে কিছু মুদ্রার মান স্থির। যেমন যুক্তরাষ্ট্রের ডলার একটি নির্দিষ্ট দামে নির্ধারিত। ১৯৯৮ সাল পর্যন্ত মার্কিন ডলারের সঙ্গে অস্ট্রেলিয়ার ডলারের মান নির্দিষ্ট করা ছিল। কিন্তু পরবর্তীতে সেটি বাতিল করা হয়। এখন চাহিদা ও সরবরাহ অনুযায়ী অস্ট্রেলিয়ান ডলারের মূল্যও ওঠানামা করে।

উল্লেখ্য, মুদ্রা শক্তিশালী হওয়ার বিভিন্ন কারণের মধ্যে অন্যতম হলো রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা, পণ্যের চাহিদা ইত্যাদি।

 

চাটগাঁ নিউজ/এমএসআই

Scroll to Top