অস্ত্রধারীদের বাধার মধ্যেও পাহাড়ে উন্নয়ন কর্মকান্ড বাস্তবায়ন করছে বর্তমান সরকার

শেয়ার করুন

রাঙামাটি প্রতিনিধি: পাবর্ত্য অঞ্চলকে একসময় বিছিন্ন দ্বীপ হিসেবে চিহ্নিত করা হলেও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমানে জাতীয় সংহতির সাথে যুক্ত করে পাহাড়ে ব্যাপক উন্নয়ন করে যাচ্ছে বলে মন্তব্য করে খাদ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি দীপংকর তালুকদার এমপি বলেছেন, পাহাড়ের দূর্গম এলাকাগুলোতে অস্ত্রধারীদের বাধার মুখে চরম প্রতিকূলতার মধ্যদিয়ে সকল প্রকার উন্নয়ন কার্যক্রমগুলো বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

আগামীতে দূর্গম জুড়াছড়ি উপজেলাকে সড়ক যোগাযোগের সাথে সংযুক্ত করা হবে মন্তব্য করে দীপংকর তালুকদার বলেন, পাহাড়ের অধিবাসীদের জীবন মানোন্নয়নে জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার স্বাস্থ্য, শিক্ষা, অবকাঠামোসহ যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে সীমান্ত সড়ক নির্মাণে দৃশ্যমান কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। বিগত এক দশকে শেখ হাসিনা সরকারের ধারাবাহিক উন্নয়নের ফলেই পাহাড়বাসীদের অর্থনৈতিক আয়ের সক্ষমতা ক্রমান্বয়ে বাড়ছে।

সরকারের উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় দূর্গম জুড়াছড়ি উপজেলায় ১০ শয্যার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৫০ শয্যায় উন্নতীকরণ কাজের ভিত্তি প্রস্তুর স্থাপনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে দীপংকর তালুকদার এসব কথা বলেন। এসময় রাঙামাটি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অংসুই প্রু চৌধুরী, সিভিল সার্জন ডাঃ নীহার রঞ্জন নন্দী, জেলা পরিষদের সদস্য উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রবর্তক চাকমা, জ্ঞানেন্দু বিকাশ চাকমাসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

ভিত্তি প্রস্তুর স্থাপন শেষে স্থানীয় দরিদ্র পরিবারগুলোর মাঝে গরু, ঢেউটিন, সোলার, নগদ অর্থ বিতরণ করেন প্রধান অতিথি দীপংকর তালুকদার এমপি।

এদিকে, উক্ত অনুষ্ঠানে রাঙামাটির সিভিল সার্জন ডাঃ নীহার রঞ্জন নন্দী জানিয়েছেন, দূর্গম এলাকায় মানুষের প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা নিশ্চিতে জুরাছড়ি উপজেলায় মোট ১১ টি ক্লিনিক বর্তমানে সেবা দিয়ে যাচ্ছে, আরো ৪টি ক্লিনিক স্থাপনের কাজও চলমান রয়েছে। এছাড়া সীমান্তবর্তী দূর্গম দুমদুম্যা ইউনিয়নেও যাতে করে এলাকার মানুষ চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত না হয় সেলক্ষে সেখানেও পরবর্তীতে ক্লিনিক স্থাপন করার জন্য প্রস্তাবনা পাঠানো হবে।

Scroll to Top