সূর্যসেনের ৯০তম ফাঁসি দিবস আজ

শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক : আজকের দিনে চট্টগ্রামে ভারতবর্ষে ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের অন্যতম নেতা মাস্টারদা সূর্য সেন ও তার সহযোগী তারকেশ্বর দস্তিদারের ফাঁসি কার্যকর করা হয়। ১৯৩৪ সালের ১২ জানুয়ারি ভোর ১২টা ৩০ মিনিটে চট্টগ্রাম কারাগারে সূর্য সেনের ফাঁসি কার্যকর হয়। আজ সূর্যসেনের ৯০তম ফাঁসি দিবস।

সূর্য সেন ১৮৯৪ সালের ২২ মার্চ চট্টগ্রামের রাউজান থানার নোয়াপাড়ায় বৈদ্যব্রাহ্মণ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবার নাম রাজমণি সেন এবং মায়ের নাম শশী বালা সেন। রাজমণি সেনের দুই ছেলে আর চার মেয়ে। সূর্য সেন তাদের পরিবারের চতুর্থ সন্তান। দুই ছেলের নাম সূর্য ও কমল। চার মেয়ের নাম বরদাসুন্দরী, সাবিত্রী, ভানুমতী এবং প্রমিলা। শৈশবে পিতা মাতাকে হারানো সূর্য সেন কাকা গৌরমণি সেনের কাছে মানুষ হয়েছেন। সূর্য সেন ছেলেবেলা থেকেই খুব মনোযোগী ও ভাল ছাত্র ছিলেন এবং ধর্মভাবাপন্ন গম্ভীর প্রকৃতির ছিলেন। স্বামী বিবেকানন্দ তার জীবনে গভীর প্রভাব ফেলেন ছোটো বয়স থেকেই।

১৯১২ সালে চট্টগ্রামের ন্যাশনাল স্কুল থেকে অঙ্কে লেটারসহ প্রথম বিভাগে এন্ট্রান্স পাস করেন সূর্য সেন। এরই মধ্যে দেশকে ব্রিটিশদের হাত থেকে রক্ষার কাজে যোগ দেন। নাম লেখান গুপ্ত সমিতিতে।

চট্টগ্রাম কলেজে আইএতে ভর্তি হওয়ার পর কলেজের শিক্ষক অধ্যাপক শতীশ চক্রবর্তীর সংস্পর্শে বৈপ্লবিক চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে ‘অনুশীলন সমিতি’তে যুক্ত হন। ব্রিটিশবিরোধী একটি সশস্ত্র বিপ্লবী সংগঠন ছিল এই অনুশীলন সমিতি।

আইএ পাসের পর পশ্চিমবঙ্গের বহরমপুর কৃষ্ণনাথ কলেজে বিএ শ্রেণিতে ভর্তি হন সূর্য সেন। এ সময় বিপ্লবী ‘যুগান্তর’ দলে যোগ দেন। বহরমপুর কৃষ্ণনাথ কলেজ থেকে ১৯১৮ সালে বিএ পাস করেন।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় চট্টগ্রাম বিপ্লবী দলের (গুপ্ত সমিতি) বেশির ভাগ সদস্যকে গ্রেফতার করে ব্রিটিশ সরকার। সূর্য সেন ও অম্বিকা চক্রবর্তী শহরের দেওয়ানবাজার দেওয়ানজী পুকুরপাড়ে শান্তি আশ্রম প্রতিষ্ঠা করেন। সেখানে থেকে বিপ্লবী দল গোছানোর চেষ্টা শুরু করেন দুজন। পরে সূর্য সেন ‘যুগান্তর’ দলের সভাপতি হন।

বিয়ের পিঁড়িতে বসার ইচ্ছা না থাকলেও ১৯১৯ সালে দাদা-বৌদির পীড়াপীড়িতে চট্টগ্রামের কানুনগোপাড়ার নগেন্দ্রনাথ দত্তের মেয়ে পুষ্পকুন্তলা দেবীকে বিয়ে করেন সূর্য সেন। বিয়ের আসরে খবর পান, তার সহযোগীরা নতুন করে স্বাধীনতার সংগ্রাম শুরু করতে চান। তাদের চাওয়া, সূর্য সেনই এই সংগঠনের দায়িত্ব নেবেন। বিয়ের রাতেই পুষ্পকুন্তলা দেবীর কাছে ক্ষমা চেয়ে বাড়ি ছেড়ে গেলেন। মনপ্রাণ ঢেলে দিলেন বিপ্লবী আন্দোলনে।

১৯২০ সালের অসহযোগ আন্দোলনে সূর্য সেন ও তার দল অংশ নেয়। এ সময় স্থানীয় জনগণের সাহায্যে একটি জাতীয় বিদ্যালয় গড়ে ওঠে। সূর্য সেন এই বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা শুরু করেন। উমাতারা স্কুল নামে পরিচিত হয় বিদ্যালয়টি। এ সময়ই ‘মাস্টারদা’ নামে পরিচিত হয়ে উঠতে থাকেন সূর্য সেন। একসময় স্কুলই সূর্য সেনের বিপ্লবী কর্মকাণ্ডের গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্র হয়ে ওঠে।

বিপ্লবীরা অর্থ সংগ্রহের জন্য ডাকাতির আশ্রয়ও নিয়েছিলেন। ১৯২৩ সালের ২৪ ডিসেম্বর দিনের বেলায় সূর্য সেনের নেতৃত্বে রেলওয়ে কর্মচারীদের বেতন বাবদ নিয়ে যাওয়া ১৭ হাজার টাকা ছিনতাই করা হয়। পুলিশ বিপ্লবীদের আস্তানায় হানা দেয়। পুলিশের সঙ্গে বিপ্লবীদের যে যুদ্ধ হয়, তা ‘নাগরথানা পাহাড়খণ্ড যুদ্ধ’ নামে পরিচিত। এই যুদ্ধের পর সূর্য সেন ও অম্বিকা চক্রবর্তী ধরা পড়েন। কিন্তু যথেষ্ট প্রমাণ উপস্থিত করতে না পারায় তারা ছাড়া পান।

১৯২৪ সালে ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলন গোটা ভারত উপমহাদেশে ছড়িয়ে পড়লে বঙ্গীয় প্রাদেশিক পরিষদে ব্রিটিশ সরকার ‘১ নং বেঙ্গল অর্ডিন্যান্স’ নামে জরুরি আইন পাস করে। উদ্দেশ্য, রাজনৈতিক কার্যকলাপের জন্য সন্দেহভাজনদের বিনা বিচারে আটক রাখা। এরপর ব্রিটিশ সরকার সারা বাংলায় বিপ্লবীদের গণহারে গ্রেফতার শুরু করে। চট্টগ্রামের বিপ্লবীরা গ্রেফতার এড়াতে কলকাতায় আশ্রয় নেন। ১৯২৫ সালের ১০ নভেম্বর শোভাবাজারে বিপ্লবীদের আস্তানায় পুলিশ হানা দিলে সূর্য সেন কৌশলে পালিয়ে যান।

১৯২৬ সালের ৮ অক্টোবর কলকাতার এক মেস থেকে পুলিশ সূর্য সেনকে গ্রেফতার করে। ১৯২৮ সালের শেষের দিকে মুক্তি পাওয়ার পর স্ত্রী পুষ্পকুন্তলার অসুস্থতার খবর পেয়ে তাঁকে দেখতে যান। যেদিন বাড়ি পৌঁছান, সেদিনই মৃত্যুবরণ করেন পুষ্পকুন্তলা। এরপর অনেকটা সময় আত্মগোপনে থাকতে হয় সূর্য সেনকে।

১৯২৯ সালে চট্টগ্রাম জেলা কংগ্রেসের সম্পাদক হন মাস্টারদা সূর্য সেন। ১৯৩০ সালের শুরু থেকেই তার উদ্যোগে ভবিষ্যৎ সশস্ত্র আন্দোলনের পরিকল্পনা শুরু হয়। ১৯৩০ সালের ১৮ এপ্রিল অস্ত্র সংগ্রহের জন্য চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার দখল করেন তাঁরা। এ ঘটনাকে রমেশচন্দ্র মজুমদার ‘ভারতের বিপ্লবী কর্মকাণ্ডের সবচেয়ে সাহসিকতাপূর্ণ কাজ’ হিসেবে চিহ্নিত করেন। ব্রিটিশ সরকার সূর্য সেনসহ কয়েকজনকে ধরতে পুরস্কার ঘোষণা করে।

১৯৩০ সালের ২২ এপ্রিল জালালাবাদ পাহাড়ে পুলিশ ও সেনাবাহিনীর সঙ্গে সূর্য সেনের নেতৃত্বে বিপ্লবীদের যুদ্ধ হয়। যুদ্ধে ব্রিটিশ বাহিনীর ৮০ জন মারা যান এবং ১২ জন বিপ্লবী শহীদ হন।

১৯৩৩ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি। চট্টগ্রামের পটিয়ার গৈরিলা গ্রামের ক্ষীরোদপ্রভা বিশ্বাসের বাড়িতে আত্মগোপনে ছিলেন মাস্টারদা সূর্য সেনসহ আরও কয়েক বিপ্লবী। এক বিশ্বাসঘাতকের মাধ্যমে খবর পৌঁছে যায় ব্রিটিশ পুলিশের কাছে। বাড়িটি ঘিরে ফেলে পুলিশ। তুমুল লড়াইয়ের পর পুলিশের হাতে গ্রেফতার হন মাস্টারদা। হাত-পা শিকলে বেঁধে মাস্টারদাকে নিয়ে যাওয়া হয় চট্টগ্রামে। ২০ ফেব্রুয়ারি জেলে পাঠানো হয়। মাস্টারদার ফাঁসির আদেশ দেয় ব্রিটিশ শাসক।

সূর্য সেন গ্রেফতার হওয়ার পর তারকেশ্বর দস্তিদার দলের নেতৃত্ব গ্রহণ করেন। কিন্তু ১৯৩০ সালের ১৮ মে আনোয়ারা থানার গহিরা গ্রাম থেকে তারকেশ্বর দস্তিদার ও কল্পনা দত্তকে গ্রেফতার করা হয়।

সূর্য সেন, তারকেশ্বর দস্তিদার ও কল্পনা দত্তকে বিচারের জন্য ইন্ডিয়ান পেনাল কোডের ১২১/১২১ ধারা অনুযায়ী স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল গঠন করা হয়। ১৫ জুন ১৯৩৩ সালে শুরু হওয়া এই মামলায় কঠোর গোপনীয়তা অবলম্বন করা হয়। ট্রাইব্যুনাল সূর্য সেনকে ১২১ ধারা অনুসারে দোষী সাব্যস্ত করে প্রাণদণ্ডে দণ্ডিত করেন। একই ধারায় তারকেশ্বর দস্তিদারের প্রাণদণ্ডের আদেশ হয়। কল্পনা দত্তকে যাবজ্জীবন দণ্ডাদেশ দেওয়া হয়। মামলার রায়ের পর তিনজন বিপ্লবীর পক্ষে কলকাতা হাইকোর্টে আপিলের আবেদন করা হয়। ১৪ নভেম্বর ১৯৩৩ সালে হাইকোর্ট রায়ে স্পেশাল ট্রাইব্যুনালের দণ্ড বহাল রাখেন।

১৯৩৪ সালের ১২ জানুয়ারি মধ্যরাতে সূর্য সেন ও তারকেশ্বর দস্তিদারের ফাঁসী কার্যকর হবার কথা উল্লেখ করা হয়। সূর্য সেন এবং তারকেশ্বর দস্তিদারকে ব্রিটিশ সেনারা নির্মম ভাবে অত্যাচার করে। ব্রিটিশরা হাতুড়ী দিয়ে তার দাত ভেঙে দেয় এবং তার হাড় ও ভেঙ্গে দেয়। হাতুড়ী দিয়ে নির্মম ভাবে পিটিয়ে অত্যাচার করা হয়। এরপর তিনি অজ্ঞান হয়ে যান। নিষ্ঠুরভাবে তাদের অর্ধমৃতদেহ দুটি ফাঁসিতে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়। সূর্য সেন ও তারকেশ্বর দস্তিদারের লাশ আত্মীয়দের হাতে হস্তান্তর করা হয়নি এবং হিন্দু সংস্কার অনুযায়ী পোড়ানো হয়নি। ফাঁসীর পর লাশদুটো জেলখানা থেকে ট্রাকে করে ৪ নম্বর স্টীমার ঘাটে নিয়ে যাওয়া হয়। তারপর মৃতদেহ দুটোকে ব্রিটিশ ক্রুজার “The Renown” এ তুলে নিয়ে বুকে লোহার টুকরা বেঁধে বঙ্গোপসাগর আর ভারত মহাসাগরের সংলগ্ন একটা জায়গায় ফেলে দেয়া হয়।

ফাঁসির মঞ্চে যাওয়ার আগে সঙ্গীদের উদ্দেশে সূর্য সেন লিখে যান, ‘আমি তোমাদের জন্য রেখে গেলাম মাত্র একটি জিনিস, তা হলো আমার একটি সোনালি স্বপ্ন। স্বাধীনতার স্বপ্ন। প্রিয় কমরেডস, এগিয়ে চলো। সাফল্য আমাদের সুনিশ্চিত।’

মাস্টারদা অবিভক্ত ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামী ছিলেন। বর্তমানেও মাস্টারদা ভারত এবং বাংলাদেশে ব্যাপক ভাবে সমাদৃত এবং বিপ্লবী হিসেবে জনপ্রিয়। মাস্টারদার বীরত্বগাথা বর্তমান ভারত এবং বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থাতেও পড়ানো হয়ে থাকে। মাস্টারদাকে সম্মান জানাতে ভারত এবং বাংলাদেশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নাম, রাস্তার নাম, বিশ্ববিদ্যালয় হলের নাম আছে৷ কলকাতা মেট্রো মাস্টারদা সূর্য সেনের স্মরণে বাঁশদ্রোণী মেট্রো স্টেশনটির নামকরণ করেছে মাস্টারদা সূর্য সেন মেট্রো স্টেশন। এছাড়াও, মাস্টারদার নামে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টারদা সূর্যসেন হল, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে মাস্টারদা সূর্যসেন হল প্রতিষ্ঠা করা হয়।

চাটগাঁ নিউজ/এসএ

Scroll to Top