পটিয়ায় ঈগল প্রার্থীর গাড়িবহরে হামলা

শেয়ার করুন

চাটগাঁ নিউজ ডেস্ক: চট্টগ্রাম-১২ (পটিয়া) আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী জাতীয় সংসদের হুইপ সামশুল হক চৌধুরীর কর্মী-সমর্থকদের গাড়িবহরে হামলা চালিয়েছেন আওয়ামী লীগের কর্মী-সমর্থকেরা। এতে স্বতন্ত্র প্রার্থীর ছোট ভাই ফজলুল হক চৌধুরী মহব্বতের মাথা ফেটে যায়। হুইপকে বহনকারী গাড়ির সাইড গ্লাস ভেঙে দেওয়া হয়।

শনিবার বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে পটিয়া উপজেলার শান্তিরহাট বাজারে এ ঘটনা ঘটে।

স্বতন্ত্র প্রার্থী হুইপ সামশুল হক চৌধুরীর নির্বাচনী প্রধান সমন্বয়ক নাজমুল করিম চৌধুরী শারুন জানান, বেলা ১২টার দিকে তাঁরা নির্বাচনী প্রচারণার গাড়িবহর নিয়ে শান্তির হাট বাজার অতিক্রম করছিলেন।

এ সময় তাঁদের গাড়িবহরে নৌকা প্রতীকের স্লোগান দিয়ে ১৫ থেকে ২০ জন হামলা চালান। তাদের হামলায় হুইপের ভাই ফজলুল হক চৌধুরী মহব্বতের মাথা ফেটে যায়। তাঁরা হুইপের বহনকারী গাড়িতে হামলা করে গ্লাস ভাংচুর করে। মাইক্রোবাস ভাঙচুর করেন ও গাড়ি থেকে নামিয়ে কর্মীদের মারপিট করেন। এতে পাঁচ কর্মী আহত হয়েছেন বলে দাবি করেন নাজমুল করিম চৌধুরী শারুন।

আহতরা হলেন, হুইপের ভাই ফজলুল হক চৌধুরী মহব্বত (৫৫), নাজমা আক্তার (৩০), বেলাল চৌধুরী (৫৫), আরিফ (৩২), আবু তৈয়ব (৩২), রিমন (২৭), মিনহাজ উদ্দিন (২৫), মানিক (৪০), ইউপি সদস্য সালাউদ্দিন সরওয়ার (৩৩)।

তাদের মধ্যে ফজলুল হক চৌধুরী মহব্বতকে পটিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পটিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক ইরম আবেদীন। বাকী সবাইকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

স্বতন্ত্র প্রার্থী সামশুল হক চৌধুরীর প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট ও হুইপ পুত্র নাজমুল করিম চৌধুরী শারুন অভিযোগ করে বলেন, ‘নির্বাচনী প্রচার প্রচারণা শুরুর দিন থেকেই নৌকার কর্মী-সমর্থকেরা বাধা দিচ্ছেন। সশস্ত্র অবস্থায় তাঁরা হামলা করছেন। এতে সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ বিঘ্নিত হচ্ছে। আশা করছি প্রশাসন এসব বিষয়ে নজর দেবে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে পটিয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আরিফুল ইসলাম বলেন, ‘ঈগল প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী প্রচারণা চালাতে গিয়ে এমন ঘটনা ঘটে। আমরা খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছি। এ বিষয়ে কেউ অভিযোগ দিলে আমরা আইনগত ব্যবস্থা নেব।

এ প্রসঙ্গে জানতে চট্টগ্রাম-১২ (পটিয়া) আসনের নৌকার প্রার্থী মোতাহেরুল ইসলাম চৌধুরীর মুঠোফোনে কল করা হলে তিনি ধরেননি। তবে নৌকার সমর্থক কুসুমপুরা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট এম হোসাইন রানা জানিয়েছেন, শনিবার সকালে শান্তিরহাটে নৌকা সমর্থিত কার্যালয়ে মহিলা কর্মী সভা চলছিল। সভা চলাকালীন অদূরে মাদ্রাসা গেইট এলাকায় স্বতন্ত্র প্রার্থীকে সড়কে অবরুদ্ধ করে রাখার খবর পেয়ে আমরা ছুটে গিয়ে উদ্ধার করে নিরাপদে পৌছাতে সহযোগিতা করি।

Scroll to Top