অটোরিকশায় পুড়ে অঙ্গার চালক—অন্ধকার নেমে এলো পরিবারে

শেয়ার করুন

সাতকানিয়া প্রতিনিধিঃ ‘পরিবারে একমাত্র আয়ের লোক ছিল আমার ছেলে। তার আয় দিয়ে চলত আমাদের পুরো পরিবারের ভরণপোষণ। এখন আমাদের দেখবে কে?’ এমন প্রশ্ন তুলে কান্না জর্জরিত চোখে ছেলেহারা মায়ের আর্তনাদ শোনা যায় চন্দনাইশে পুলিশের ধাওয়া খেয়ে সিলিন্ডার বিস্ফোরণে নিহত হওয়া সবুরের মায়ের।

বৃহস্পতিবার (২৮ মার্চ) সকালে নিহত সবুরের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, জরাজীর্ণ একটি  বাড়িতে কোনো রকমে মাথা গোঁজার মতো করে রয়েছেন তার পরিবারের সদস্যরা।

এর আগে সোমবার (২৫ মার্চ) উপজেলার গাছবাড়িয়া কলঘর এলাকায় চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় নিহত হন সিএনজিচালিত অটোরিকশাচালক সবুর। ট্রাফিক পুলিশকে দেখে ভয়ে পালানোর সময় বালুবাহী ট্রাকের সাথে অটোরিকশার সংঘর্ষ ঘটে। এতে ঘটনাস্থলেই গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে পুড়ে অঙ্গার হয়ে যান চালক সবুর (৩৭)।

নিহত সবুরের মা কান্না জর্জরিত চোখে বলেন, আমাদের পরিবারের আয় রোজগারের একমাত্র মাধ্যম ছিল আমার ছেলেটা। সে যা আয় করত তা দিয়ে সংসার চলতো। আমাদের অবস্থা এখন ভালো না।

নিহতের স্ত্রী বলেন, পুলিশ তাড়া করেছিল বলেই ওইদিন আমার স্বামীর এই পরিণতি হয়েছে। আমি এর সুষ্ঠু বিচার চাই। কারণ আমার দুইটা অবুঝ বাচ্চা আছে। বাচ্চাগুলো তাদের বাবাকে চিরতরে হারিয়ে ফেলেছে। আমার এই দুই বাচ্চাকে এখন মানুষ করবে কে?

নিহতের চাচাতো ভাই জানান, ছোটকাল থেকে জীবনে অনেক কষ্ট পেয়েছে সবুর। তার পরিবারের উপার্জন করার আর কেউ নেই। তাকে কোনোদিন কারো সাথে খারাপ আচরণ করতে দেখিনি। সবার সাথে তার ভালো সম্পর্ক ছিল। আপনারা সবাই যেভাবে পারেন তার পরিবারকে সহযোগিতা করবেন।

আনোয়ারা সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. সোহানুর রহমান সোহাগ চাটগাঁ নিউজকে জানান, সেইদিন কি হয়েছিল হাইওয়ে পুলিশ জবাব দেবে। এটা তাদের কাজ। এই ব্যাপারে তারা প্রতিবেদন জমা দেবে। প্রতিবেদনের পর কোনো দায় থাকলে তার ব্যবস্থা পুলিশ কার্যালয় থেকে নেওয়া হবে।

চাটগাঁ নিউজ/এমআর

Scroll to Top